ডিজিটাল মার্কেটিং (Digital Marketing)

ডিজিটাল মার্কেটিং কি এবং এটির প্রয়োজনীয়তাই বা কি? এই প্রশ্নটি এখন সবার। উদ্যোক্তা থেকে শুরু করে প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী সবাই এখন ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে জানতে চায়। বর্তমান যুগ ডিজিটাল মার্কেটিং এর যুগ। এখন ঘরে বসে অনলাইনে কেনা কাটা থেকে শুরু করে, অনলাইনে ইনকাম করা সবটাই এই ডিজিটাল মার্কেটিং এর ওপর নির্ভর করে।

ডিজিটাল মার্কেটিং কি বলতে মানুষ মূলত সোশ্যাল মিডিয়ায় পন্যের বিজ্ঞাপনকেই বুঝে। কিন্তু আসলে ব্যাপারটা কি তাই? আসুন আজকের এই আর্টিকেল থেকে আমরা জানার চেষ্টা করি, ডিজিটাল মার্কেটিং কি এবং এর সাথে আরো কি কি ব্যাপার জড়িত আছে।

ডিজিটাল মার্কেটিং কি এর ধাপগুলোই বা কি? কি কি উপায়ে ডিজিটাল মার্কেটিং করা যায়? এই সব বিষয়গুলো নিয়েই আমাদের আজকের আলোচনা। কথা না বাড়িয়ে আসুন জেনে নেই ডিজিটাল মার্কেটিং কি?

ডিজিটাল মার্কেটিং কি? (What is digital marketing)

ডিজিটাল মার্কেটিং কি হচ্ছে- ইন্টারনেট, মোবাইল ফোন, সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে কনজিউমারের কাছে পন্যের জানান দেওয়ার একটি পন্থা। মার্কেটিং এর কাজ মূলত মানুষের নিকট পন্য সঠিক সময়ে পৌঁছে দেয়া বা জানান দেয়া। বর্তমানে মানুষ বেশিরভাগ সময় ব্যয় করে থাকেঅনলাইনেকরোনাকালীন সময়ে তার স্থায়ীত্ব বৃদ্ধি পেয়েছে কয়েক গুন। এই বিশাল পরিমানের অডিয়েন্সের সামনে আপনার পন্য সম্পর্কে তুলে ধরার সহজ এবং কার্যকরী পদ্ধতি হচ্ছে ডিজিটাল মার্কেটিং।যদি আরও সহজে বলতে চাই, ডিজিটাল মার্কেটিং হচ্ছে প্রোডাক্ট মার্কেটিং এর একটি দিক যেটি ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস, সোসাল মিডিয়া, ইন্টারনেট এর সাথে সম্পৃক্ত।
ডিজিটাল মার্কেটিং এর ধাপসমূহ

ডিজিটাল মার্কেটিং (Digital Marketing)  এর অনেকগুলো ধাপ আছে। যেগুলো প্রয়োগ করে মূলত ডিজিটাল মার্কেটাররা বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে ডিজিটাল মার্কেটিং করে থাকেন। নিচের লিস্টে আপনি সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ কতগুলো ধাপ সম্পর্কে জানতে পারবেন। আসুন লিস্টটা দেখে নেই।

  • এসইও বা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন
  • এসইএম বা সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং
  • কন্টেন্ট মার্কেটিং
  • সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং বা এসএমএম
  • এফিলিয়েট মার্কেটিং
  • ইমেইল মার্কেটিং
  • ই-কমার্স প্রোডাক্ট মার্কেটিং
  • সিপিএ মার্কেটিং
  • অফলাইন মার্কেটি
  • ZEnhanced অফলাইন মার্কেটিং (LED Tv add)
  • রেডিও মার্কেটিং
  • টেলিভিশন মার্কেটিং
  • ফোন মার্কেটিং

 এসইও বা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন

বর্তমানে সবচেয়ে বেশি ট্রাফিক জেনারেট করতে পারে সার্চ ইঞ্জিন। এবং সবচেয়ে জনপ্রিয় মার্কেটিং স্ট্রাটেজি হচ্ছে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন। এক কথায় যদি এসইও সম্পর্কে বলি তাহলে কথা টা এমন দাঁড়ায় যে – ওয়েবসাইটকে এমন ভাবে সাজানো, যার মাধ্যমে সার্চ ইঞ্জিন গুলো জানতে পারে আপনার কন্টেন্টে কি রয়েছে এবং যারা সার্চ করছেন তাদের কি-ওয়ার্ড এর সাথে ম্যাচ করে সাইট কে অপটিমাইজ করাই হচ্ছে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন।

কন্টেন্ট ডিজিটাল মার্কেটিং কি

কন্টেন্ট মার্কেটিং বলতে অনেকেই মনে করে থাকেন ব্লগ পোস্টকে, তবে ব্যাপারটি পুরোপুরি এমন নয়। গল্প বলার মাধ্যমে অনেকে অনেক ধরনের প্রোডাক্টের কথা আমাদের সামনে তুলে আনেন। স্টোরিটেলিং এর মাধ্যমে প্রচার করাটাই মূলত কন্টেন্ট মার্কেটিং। এসব নিয়ে আমাদের বিস্তারিত আলোচনা হবে আগামী পোস্ট গুলোতে। তবে এর আগে আরেকটু মস্তিষ্কের খোরাক দিয়ে যাই, সেটা হচ্ছে কন্টেন্ট মার্কেটিং প্রথম শুরু হয়েছে ১৮৮৫ সালে (The Furrow) নামের একটি ম্যাগাজিন এর মধ্য দিয়ে।

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং বা এসএমএম

ডিজিটাল মার্কেটিং এর সবচেয়ে জনপ্রিয় দিক হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং। কারণ বর্তমান সময়ে মানুষ সবচেয়ে বেশি সময় ব্যয় করেন সোস্যাল মিডিয়াতে। সেলারদের জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত স্থান হচ্ছে সোস্যাল মিডিয়া, ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম ইত্যাদি। খুব কম খরচে টার্গেটেড অডিয়েন্সের কাছে পৌছানোর সবচেয়ে সহজ মাধ্যম হচ্ছে সোস্যাল মিডিয়া মার্কেটিং।

সিপিএ মার্কেটিং

CPA বা ক্লিক পার অ্যাকশন মার্কেটিং হল একটি অ্যাফিলিয়েট মডেল যেখানে একজন ব্যবহারকারী একটি নির্দিষ্ট ক্রিয়া সম্পাদন করার পরে একটি কমিশন প্রদান করা হয়। এটি হতে পারে, উদাহরণস্বরূপ, একটি ভিডিও দেখুন বা একটি নির্দিষ্ট লিঙ্কে ক্লিক করুন, একটি ফরম পূরণ করা, একটি পণ্য ক্রয় করুন ইত্যাদি।
CPA অ্যাফিলিয়েটরা এই প্রতিটি কাজের জন্য একটি নির্দিষ্ট ফি পায় যা একজন ব্যবহারকারী নেয় বা সম্পূর্ণ করে।

ডিজিটাল মার্কেটিং ক্যারিয়ার

ডিজিটাল মার্কেটিং কি একটি সম্ভাবনাময় কাজের ক্ষেত্র এবং প্রতিনিয়ত এই খাতের প্রয়োজনীয়তা বেড়ে চলেছে। এটি যেমন সম্ভাবনাময় কাজের ধরণ তেমনি চ্যালেঞ্জিং ও। আরো জেনে অবাক হবেন বিশ্বের অনেক নামি দামি বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে ডিজিটাল মার্কেটিং এর উপর ডিগ্রি দেওয়া হচ্ছে। অনেকে আছেন মাস্টার্স পড়ার জন্য ডিজিটাল মার্কেটিং এর বিষয়টি বেছে নেন। কারণ হিসেবে দেখা যাচ্ছে, অদূর ভবিষ্যতে এর ব্যপক চাহিদা সৃষ্টি হবে এবং এখনো রয়েছে। তরুনদের মধ্যে অনেকে ডিজিটাল মার্কেটিং (Digital Marketing) কে ক্যারিয়ার হিসেবে নিতে স্বাচ্ছন্দ বোধ করেন। কারণ হিসেবে বিশ্লেষণ করে দেখা যায় যে, এই সেক্টরটি তুলনামূল শিখা সহজ এবং চাহিদা সম্পন্ন। ডিজিটাল মার্কেটিং এর অনেকগুলো দিক থাকার কারণে যে কেউ সহজে প্র্যাকটিস করা শুরু করে দিতে পারে।  এছাড়া কেউ যদি ডিজিটাল মার্কেটিং (Digital Marketing)  শিখে যায়, তাহলে অতি শীগ্র সে নিজের যে কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দাঁড় করিয়ে নিতে পারে। বর্তমান সময়ে যে যাই করুক তাদের সকলের অনলাইনে প্রচারণার দরকার পড়ে। যেটি সামনের দিন গুলোতে আরো বেশি পরিমাণে বৃদ্ধি পাবে। এই সকল প্রতিষ্ঠান অনলাইনে নিজেদের একটিভিটি বাড়াতে আগ্রহী হচ্ছে। ফলে সবার নিজস্ব একটি মার্কেটিং এজেন্সি কিংবা মার্কেটার প্রয়োজন হতে পারে।

ডিজিটাল মার্কেটিং করে আয়

যুক্তরাষ্ট্রে একজন ডিজিটাল মার্কেটার এর মান্থলি স্যালারি প্রায় ৪৮৬২ ডলার। বাংলাদেশি টাকায় প্রায় সাড়ে চার লক্ষ টাকার কাছাকাছি। আমাদের পাশের দেশ ইন্ডিয়াতে ডিজিটাল মার্কেটারদের মান্থলি গড়ে ১৫-৮৮ হাজার রুপি স্যালারি রয়েছে । ডিজিটাল মার্কেটিং এর সম্ভাবনার দ্বার বিশাল। আপনি চাইলে ফ্রিল্যান্সিং করতে পারেন। কোন সংস্থার জন্য হয়ে কাজ করতে পারেন। কোন বড় মিডিয়ার জন্য কাজ করতে পারেন। নির্বাচনি প্রচার করে আয় করতে পারেন। এটি একটি সম্ভাবনাময় খাত। এবারের মার্কিন নির্বাচনে আমরা দেখেছি সরাসরি প্রচারণার চেয়ে প্রেসিডেন্টরা সোসাল মিডিয়াকে ব্যবহার করে বেশি টাকা খসিয়েছেন। সামনে যুক্তরাষ্ট্র কে ফলো করে অনেক দেশ নির্বাচনী প্রচারণার জন্য সোসাল মিডিয়াকে ব্যবহার করলে নতুন একটি বিশাল সম্ভাবনাময় দিক উন্মোচিত হবে ডিজিটাল মার্কেটিং এর জন্য। আশা করি পাঠক আপনার সামনে সামান্য কিছু তথ্য তুলে ধরতে পেরেছি ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে। আগামী পোস্ট গুলোতে নির্দিষ্ট টপিক নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো। সেই পর্যন্ত ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন।

ডিজিটাল মার্কেটিং (Digital Marketing) এর ভবিষ্যৎ কি?

দেখুন, বর্তমান বিশ্বের বাজার ব্যবস্থা যেভাবে ডিজিটাল ইন্ডাস্ট্রিতে রূপ নিচ্ছে। সেদিন আর বেশি দূরে নয়, যখন মানুষ আর দোকানে কিংবা বাজারে গিয়ে পণ্য কেনা বন্ধ করে দিবে। তারা সবকিছু অনলাইনেই কিনে নিবে। কারণ ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সাথে জীবনযাত্রা অনেক কঠিন হয়ে পড়েছে। আর মানুষ সময় নষ্ট করে বাজারে গিয়ে পণ্য যাচাই বাছাই করার থেকে অনলাইনে যেকোন পণ্য সম্পর্কে সার্চ করে ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা জেনে নিতে পারে। আর পছন্দ হলে সেই পণ্য একটি বিশ্বাসযোগ্য বিক্রেতার কাছ থেকে অনলাইনের মাধ্যমেই কিনে নিতে পারে। আর এই অনলাইন বাজার ব্যবস্থা সম্পূর্ণভাবে ডিজিটাল মার্কেটিং এর ওপর নির্ভরশীল।

By Jillu Miah

আমি জিল্লু মিয়া। আমি একজন ডিজিটাল মার্কেটার এবং এসিও বিশেষজ্ঞ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *