আমি আজকের আর্টিকেলের মাধ্যমে “Facebook কি“, ফেসবুক এর ব্যবহার এবং এর সাথে জড়িত অপকারিতার বিষয়ে আপনাদের বলবো।

এতে খুব সহজেই, একজন নতুন ইউসার (user), Facebook এর ব্যাপারে সবটাই জেনে নিতে পারবেন। Facebook  হলো এমন একটি অনলাইন ওয়েবসাইট, যেখানে আপনি আপনার “বিচার”, “ধারণা”, “জ্ঞান”, “ছবি”, “video” বা “ব্যক্তিগত জীবনের কিছু অংশ” এই ওয়েবসাইটে সক্রিয় (active) অন্যান্য ইউসার (user) এর সাথে share করতে পারবেন।

হে, এসব করার ক্ষেত্রে আপনার একটি “Facebook account” নতুন করে তৈরি করতে হবে। এই অনলাইন ওয়েবসাইটে আপনারা বিভিন্ন নতুন নতুন লোকেদের (Facebook user) সাথে বন্ধুত্ব করতে পারবেন। এই ক্ষেত্রে, বিশ্বের যেকোনো জায়গায় থাকা যেকোনো “Facebook user” এর সাথে বন্ধুত্ব করার জন্য, আপনার পাঠাতে হয় একটি “Friend request“.

এবং, আপনার পাঠানো friend request যদি সেই ব্যক্তি বিশেষের দ্বারা “accept” করা হয়, তাহলে সে হয়ে যাবে আপনার “Facebook friend“.

Facebook friends রা, আপনার profile এ শেয়ার করা প্রত্যেকটি content, images, videos বা status গুলো দেখতে পারেন এবং তাতে “like” ও “comment” করে নিজেদের মতামত প্রকাশ করতে পারেন।

ফেসবুকের আধুনিক features এবং নতুন নতুন functions গুলোর কারণে, এই online platform ব্যবহারকারীদের সংখ্যা দিনের পর দিন বেড়েই চলেছে। তাই, ইন্টারনেটের জগতে ফেসবুক (Facebook)  একটি অনেক মজার platform, যেটার অনুভব প্রত্যেকেই একবার হলেও নিয়ে দেখার পরামর্শ আমি দিবো।

ফেসবুক (ইংরেজি: Facebook) অথবা ফেইসবুক (সংক্ষেপে ফেবু নামেও পরিচিত), হল মেটা প্ল্যাটফর্মসের মালিকানাধীন বিশ্ব-সামাজিক আন্তঃযোগাযোগ ব্যবস্থার একটি ওয়েবসাইট, যা ২০০৪ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি প্রতিষ্ঠিত হয়। এটিতে বিনামূল্যে সদস্য হওয়া যায়। ব্যবহারকারীগণ বন্ধু সংযোজন, বার্তা প্রেরণ এবং তাদের ব্যক্তিগত তথ্যাবলী হালনাগাদ ও আদান প্রদান করতে পারেন, সেই সাথে একজন ব্যবহারকারী শহর, কর্মস্থল, বিদ্যালয় এবং অঞ্চল-ভিক্তিক নেটওয়ার্কেও যুক্ত হতে পারেন। শিক্ষাবর্ষের শুরুতে ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যকার উত্তম জানাশোনাকে উপলক্ষ করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কর্তৃক প্রদত্ত বইয়ের নাম থেকে এই ওয়েবসাইটটির নামকরণ করা হয়েছে।

মার্ক জাকারবার্গ হার্ভাড বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালীন তার কক্ষনিবাসী ও কম্পিউটার বিজ্ঞান বিষয়ের ছাত্র এডুয়ার্ডো স্যাভেরিন, ডাস্টিন মস্কোভিত্‌স এবং ক্রিস হিউজের যৌথ প্রচেষ্টায় ফেসবুক নির্মাণ করেন। ওয়েবসাইটটির সদস্য প্রাথমিকভাবে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল, কিন্তু পরে সেটা বোস্টন শহরের অন্যান্য কলেজ, আইভি লীগ এবং স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত সম্প্রসারিত হয়। আরো পরে এটা সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ, হাই স্কুল এবং ১৩ বছর বা ততোধিক বয়স্কদের জন্য উন্মুক্ত করা হয়। সারা বিশ্বে বর্তমানে এই ওয়েবসাইটটি ব্যবহার করছেন ২.৯৩ বিলিয়ন সক্রিয় ব্যবহারকারী।

ফেসবুক (Facebook)  তার চলার পথে বেশ কিছু বাধার সম্মুখীন হয়েছে।বাংলাদেশ, সিরিয়া, চায়না এবং ইরান সহ বেশ কয়েকটি দেশে এটা আংশিকভাবে কার্যকর আছে। এটার ব্যবহার সময় অপচয় ব্যাখ্যা দিয়ে কর্মচারীদের নিরুৎসাহিত করে তা নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ফেসবুক (Facebook)  ওয়েবসাইট কে আইন জটিলতায় পড়তে হয়েছে বেশ কয়েকবার জাকারবার্গের সহপাঠী কর্তৃক, তারা অভিযোগ এনেছেন যে ফেসবুক (Facebook)  তাদের সোর্স কোড এবং অন্যান্য বুদ্ধিবৃত্তিক সম্পত্তি আত্মসাৎ করেছে। ফেব্রুয়ারি ২০১৫ সালের হিসাব অনুযায়ী ফেসবুকের মূলধন ২১২ বিলিয়ন ডলারে গিয়ে উঠেছে।

ফেসবুক (Facebook)  এর সাথে জড়িত কিছু শব্দ

যদি আপনি ফেসবুক (Facebook)  এর বিষয়ে কিছুই জানেননা, তাহলে এর সাথে জড়িত কিছু জনপ্রিয় শব্দের ব্যাপারে জেনেনিন।

১. ফেসবুক (Facebook)  marketplace

ফেসবুকের এই সেবা, সাধারণ লোকেদের লাভের লাভের ক্ষেত্রে নিয়ে আশা হয়েছে। Facebook market place এর মাধ্যমে, যেকোনো নতুন বা পুরোনো পণ্য (products) লিস্ট করে অনলাইন অন্যান্য ফেসবুক ইউসার এর কাছে বিক্রি করতে পারবেন। সোজা ভাবে বললে, online যেকোনো product কেনা বেচা (buy/sell) করার একটি মাধ্যম।

২. Pages

একটি business, brands, celebrities এবং অন্যান্য সংগঠন (organizations) ক্ষেত্রে, কিছু public pages আলাদা করে তৈরি করা হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, কোনো একটি বিশেষ বিষয় বা ব্যবসা নিয়ে প্রচার চালানোর উদ্দেশ্যে এই pages গুলোকে তৈরি করা হয়। এই pages গুলোকে business pages বলেও বলা হয়।

৩. ফেসবুক (Facebook)  live

ফেসবুক (Facebook)  লাইভ হলো ফেসবুকের দ্বারা নিয়ে আশা একটি সেবা (service), যেখানে যেকোনো ফেসবুক ব্যবহারকারীরা নিজের mobile বা কম্পিউটারের camera ব্যবহার করে, “live video streaming” করতে পারবেন।

৪. ফেসবুক (Facebook)  groups

ফেসবুকে গ্রুপ আলাদা ভাবে তৈরি করা যেতে পারে। তবে, গ্রুপ তৈরির ক্ষেত্রে আপনার একটি ফেসবুক একাউন্ট থাকতেই হবে। গ্রুপ এর ক্ষেত্রে, যেকোনো একটি বিশেষ বিষয়, টপিক, ব্যবসা বা কার্যকলাপ নিয়ে একটি আলাদা ভাবে পেজ তৈরি করা হয়। তারপর, সেই বিষয় নিয়ে লোকেদের বিভিন্ন মতামত, পরামর্শ এবং অভিজ্ঞতা গ্রুপ এর মাধ্যমে শেয়ার ও চর্চা করা হয়। যেকোনো ব্যবসার ক্ষেত্রে, একটি Facebook group তৈরি করে ব্যবসার সাথে জড়িত বিভিন্ন প্রচার (promotions) চালানো যেতে পারে। তাছাড়া, একটি ব্যবসার ক্ষেত্রে লোকেদের সাথে অনলাইনে সংযুক্ত হওয়ার ভালো মাধ্যম এই “Groups” গুলো।

৫. Block a friend

আপনি আপনার ফেসবুক একাউন্ট থেকে যেকোনো friend বা user কে block করে রাখতে পারবেন এতে, সেই user ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার সাথে কোনো ভাবেই যোগাযোগ করতে পারবেননা তাছাড়া, আপনার সম্পূর্ণ profile এবং profile এর সাথে জড়িত কোনো রকমের  তথ্য সেই ব্যক্তি দেখতে পারবেনা।

 ৬. Friend request

ফেসবুকের মধ্যে অন্যান্য user দের নিজের Facebook friends বানানোর ক্ষেত্রে, আপনার প্রথমেই তাদের “friend request” পাঠাতে হয়। আপনার পাঠানো “friend request” মেনে নেওয়ার (accept) পর সেই ব্যক্তি আপনার Facebook friend হয়ে যায়। ঠিক এভাবেই, আপনাকেও অনেকেই friend request পাঠাতে পারবেন। এবং, তাদের পাঠানো “request” মানা ও না মানাটা সম্পূর্ণ আপনার ওপরেই থাকছে।তাই, Facebook এর মধ্যে “Friend request” হলো সেই শব্দটি, যখন বন্ধু বানানোর ক্ষেত্রে আপনাকে কেও অনুরোধ করেন।

৭. Like

Facebook এ share করা যেকোনো post, content, status, images বা video গুলো যখন অন্যান্য user রা দেখেন, তখন সেই post টিকে সমর্থন (support) করার একটি মাধ্যম হলো Like.তবে, বর্তমানের সময়ে “like” ছাড়াও যেকোনো post এর জন্য নিজের মতামত প্রকাশ করার ক্ষেত্রে অন্যান্য অনেক emoji ব্যবহার করা যেতে পারে।

৮. Share

আপনার বা যেকোনো অন্যের post করা যেকোনো information, content, images, videos ইত্যাদি অন্যদের সাথে share করার function টিকে বলা হয় “Facebook share”.

ফেসবুকের অপকারিতা কিছু কি কি?

বর্তমান সময়ে ফেসবুকের প্রচুর ব্যবহার প্রত্যেকেই করছেন। এবং, অনেক ক্ষেত্রেই ফেসবুক এর কিছু অপকারিতা, কুফল বা খারাপ প্রভাব হওয়া দেখা গেছে। যেমন,

প্রয়োজনের বাইরের ব্যবহারের ফলে, আপনার প্রচুর সময় নষ্ট হতে পারে।

অনেক লোকেরা, ফেসবুকের প্রবল আকর্ষণ এর ফলে নিজের প্রয়োজনীয় কাজ গুলো করতে অবহেলা করেন।

ছাত্র থেকে শুরু করে প্রাপ্তবয়স্ক রা (adults), নিজেদের ছবি বা অন্যান্য ব্যক্তিগত (personal) তথ্য অজানা অপরিচিত লোকেদের সাথে শেয়ার করেন। এভাবে, অনেকেই বভিষ্যতে অসুবিধের সম্মুখীন হতেই পারে।

  • ছাত্রদের পড়াশোনাতে এর প্রচুর খারাপ প্রভাব দেখা গেছে।
  • Facebook আমাদের privacy এবং মূল্যবান সময় গুলোকে হানি করছে।
  • অপ্রয়োজনীয় বিজ্ঞাপন দেখানো হয়।
  • অনেক ধরণের মন বিচলিত করা images, videos বা information আমরা দেখি, যেগুলো দেখার কোনো প্রয়োজন আমাদের থাকেনা।

শেষে এতটুকু বলবো যে, Officially হতে পারে Facebook ফ্রি, তবে সত্যি বললে ফেসবুক কিন্তু ফ্রি নয়।ফেসবুক তার সেবার (services) এর বদলে আমাদের থেকে নিয়ে নিচ্ছে “আমাদের মূল্যবান সময়” এবং বিজ্ঞাপন দেখানোর উদ্দেশ্যে “আমাদের ব্যক্তিগত ডাটা ও তথ্য“।

কিভাবে নতুন ফেসবুক (Facebook)  একাউন্ট খোলা যাবে ?

  • একটি নতুন ফেসবুক (Facebook)  একাউন্ট খোলার জন্য আপনার যেতে হবে “Facebook.com” ওয়েবসাইটে।
  • ওয়েবসাইটে যাওয়ার সাথে সাথে আপনারা “Create a new account” এর লেখা দেখতে পাবেন।
  • Create a new account লেখার নিচে থাকা বাক্স গুলোতে জরুরি তথ্য দিতে হবে।
  • তথ্যের মধ্যে আপনার দিতে হবে, Name, email / mobile number, new password.
  • তারপর নিচে থাকা Sign up বাটনে ক্লিক করতে হবে।
  • Sign Up বাটনে click করার পর, পরের পেজে আপনি একটি “verification box” দেখবেন।
  • মানে, আপনার দেওয়া মোবাইল নম্বর বা ইমেইল এড্রেসটি ভেরিফাই করতে হবে।
  • Verification এর ক্ষেত্রে আপনার দেওয়া মোবাইল নম্বর বা ইমেইল আইডিতে, ফেসবুক এর তরফ থেকে একটি কোড গেছে।
  • সেই কোডটি দেখে “Facebook verification box” এ দিয়ে নিচে “Continue” তে ক্লিক করতে হবে।
  • Congratulations, এখন আপনি একটি নতুন ফেসবুক একাউন্ট খুলে নিয়েছেন।

এখন আপনি আপনার প্রোফাইলে একটি DP বা profile picture আপলোড দিয়ে, নিজের একাউন্ট ব্যবহার করতে পারবেন।

By Jillu Miah

আমি জিল্লু মিয়া। আমি একজন ডিজিটাল মার্কেটার এবং এসিও বিশেষজ্ঞ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *